বিধানসভা নির্বাচনের প্রচারে গিয়ে আহত হয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ও তৃণমূল প্রধান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ছবি: সংগৃহীত

নিউজ ডেস্ক: মনোনয়ন জমা দিয়ে ফিরে নন্দীগ্রামে পায়ে গুরুতর চোট পেলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গাড়ির দরজা খুলে দাঁড়িয়ে তিনি নন্দীগ্রামের সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলছিলেন। অভিযোগ এই সময়ে কয়েকজন সেই দরজায় ধাক্কা মারে। তাতেই পায়ে গুরুতর চোট পান মুখ্যমন্ত্রী। তাঁকে রীতিমতো যন্ত্রণায় ছটফট করতে দেখা যায়।

বুধবার (১০ মার্চ) নন্দীগ্রামের রেয়াপাড়ায় একটি মন্দির থেকে বের হওয়ার সময় চার-পাঁচজন যুবক তাকে ধাক্কা মেরে ফেলে দেয় বলে অভিযোগ করেছেন তিনি। খবর নিউজ ১৮ বাংলা ও আনন্দবাজার পত্রিকার।

মমতার অভিযোগ, এই ধাক্কা ষড়যন্ত্র করেই। নির্বাচন কমিশনে এই বিষয়ে অভিযোগ করবেন বলে জানান মমতা। মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায় স্পষ্ট বলছেন, জেনেবুঝে চার থেকে পাাঁচজন ধাক্কা মারে তাঁর গাড়ির দরজায়। তাতেই পায়ে আঘাত পান তিনি।

হলদিয়ায় মনোনয়নপত্র জমা দিয়ে নন্দীগ্রামে ফিরে আসেন মমতা। সেখানে একাধিক মন্দির পরিদর্শন করছিলেন তিনি। সবশেষ রেয়াপাড়ায় একটি মন্দির থেকে বের হওয়ার সময় ভিড়ের মধ্য থেকে তাকে ধাক্কা দেওয়া হয় বলে অভিযোগ এসেছে।

খবরে বলা হয়, ভিড়ের মধ্যে আকস্মিক ধাক্কা দেওয়ায় মুখ থুবড়ে পড়ে যান মমতা। এতে কপালে ও মাথায় আঘাত লাগে তার। এছাড়া পায়েও ব্যাথা পান তিনি। ঘটনাস্থলে তখন কোনো পুলিশ সদস্য ছিল না বলে অভিযোগ করেছে তৃণমূল। পরে দেহরক্ষীরাই তুলে গাড়িতে নিয়ে যান মমতাকে। শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী কোনও চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলার জন্য মাঝপথে গাড়ি দাঁড় করানো হতে পারে। মমতার পায়ে কোনও ফ্র্যাকচার রয়েছে কিনা তা বোঝা যাবে এক্সরে হলেই।